তারিখ : ২৫ মে ২০১৯, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

দূষণ আর দখলে মরতে বসেছে নওগাঁর ছোট যমুনা নদী

দূষণ আর দখলে মরতে বসেছে নওগাঁর ছোট যমুনা নদী,ব্যবহার করা যায় না পানি
[ভালুকা ডট কম : ০৩ মার্চ]
নওগাঁ জেলার মধ্যে দিয়ে ৬টি নদী প্রবাহিত হয়ে গেছে। যার মধ্যে উল্লেখ্য হচ্ছে ছোট যমুনা নদী, পূর্ণভবা নদী, ফক্কিন্নী নদী, তুলশীগঙ্গা নদী অন্যতম। এক সময় বছরের সব সময় এই নদীগুলো পানিতে থাকতো ভরা।এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যোগাযোগ ও মালামাল পরিবহন করার মাধ্যম বলতে এই নদীগুলোই ছিলো একমাত্র পথ। জেলেরা সারা বছর এই নদীগুলো থেকে মাছ ধরে জীবন-যাপন করতো। আজ সেই দিনগুলো শুধুই অতীত। এই নদীগুলোর সবগুলোই বর্তমানে মৃত প্রায়। এক সময়ের খরস্রোতা এই নদীগুলো বর্তমানে দখল আর দূষণের শিকার হয়ে মরতে বসেছে।

নওগাঁ শহরের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে এক সময়ের খরস্রোতা নদী ছোট যমুনা নদী । বর্তমানে এই নদী এখন মারাত্মক দূষণ আর দখলের শিকার হয়েছে। নদীর দুই পাশে দখল করে নির্মাণ করা হচ্ছে বড় বড় ভবন ও শিল্প কারখানা। দীর্ঘদিন যাবত নদীগুলো খনন না করার কারণে পলি জমে কমে গেছে নদীর নাব্যতা। তাই কোথাও কোথাও নদীর ভেতরের দুই পাশের পার কেটে সমতল করে চাষ করা হচ্ছে ফসল। আবার কোথাও অবৈধ ভাবে উত্তোলন করা হচ্ছে বালি যার কারণে নদীগুলো যৌবন হারিয়ে দ্রুত মরে যাচ্ছে। এই নদীটি এখন শহরবাসীর ময়লা আবর্জনা ফেলার ডাষ্টবিনে পরিনত হয়েছে। ফলে এক সময়ের খরস্রোতা এবং ব্যবসা বাণিজ্যের কেন্দ্র এই নদীটি ক্রমেই সংকুচিত হয়ে তার রূপ হারিয়ে ফেলছে। এর হাত থেকে রক্ষা করে নদীটিকে রক্ষা করার আহবান জানিয়েছে শহরবাসী।

শত শত বছর আগে যেখানে সাগর ও নদীর মোহনা রয়েছে সেখানেই গড়ে উঠেতো শহর। নওগাঁ শহরের মাঝখান দিয়ে প্রবাহিত এই নদীটি এক সময়ে ছিল খরস্রোতা। ব্যবসা বাণিজ্যের উল্লেখযোগ্য গুরুত্ব বহন করতো এই ছোট যমুনা নদী। বড় বড় নৌকা ভিড়ত নদীতে। ধান পাটসহ নানা পণ্য এখান থেকে নদী পথে চলে যেত রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। কৃষিক্ষেত্রেও ছিল অনবদ্য ভ’মিকা। কিন্তু কালের প্রবাহে নদীটি তার রূপ হারিয়ে এখন মৃতপ্রায়। বর্ষা মৌসুমে পানি থাকলেও খরা মৌসুমে প্রতি বছর নদীটি সম্পূর্ন শুকিয়ে যায়। বর্তমানে নদীর উভয় পার্শ্বে ফ্লাডওয়াল নির্মিত হওয়ায় শহরের নদীর উভয় পাশের বাসিন্দারা তাদের পরিত্যাক্ত সব ময়লা আবর্জনা নদীতে ফেলছে। পুরো নদীটি এখন যেন একটি বিশাল ডাষ্টবিন। যার যখন মনে হয় তখন তাদের ময়লা আবর্জনা নদীতে ফেলছে। এতে নদীটির পানি দুষনসহ পরিধি সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। এতে ভবিষ্যতে নদী দুষনের পরিমান মারাত্মক আকার ধারন করবে।

শহরের পার-নওগাঁর বাসিন্দা মিলন সরকার বলেন, ময়লা আবর্জনা নদীতে ফেলা ক্ষতিকর জেনেও কেবলমাত্র শহরে কোন ডাষ্টবিন না থাকায় ময়লা আবর্জনা ফেলার কোন জায়গা নেই বলেই তারা বাধ্য হয়ে তাদের ময়লা আবর্জনা নদীতে ফেলছেন। নদী দুষনের ফলে নদী তীরবর্তী নাগরীকদের বসবাস করা দুরুহ হয়ে পড়েছে। তাই গুরুত্বপূর্ন এই নদীটিকে রক্ষা করার দাবী শহরবাসীর।

নওগাঁ শহরের বাসিন্দা গৃহিনী মোছা: নুরজাহান আক্তার বলেন, আমি ছোটবেলায় এই নদীতে অনেক গোসল করেছি। এই নদীর পানি দিয়ে রান্না-বান্নার কাজও করেছি কিন্তু বর্তমানে নদীর পানির গন্ধে নদীর তীরে এসে বসার জো নেই। দূষণ আর দখলের কবলে এক সময়ের যৌবন দীপ্ত নদীটি বর্তমানে মরতে বসেছে। কারো নজর নেই নদীটির দিকে। আমাদের সবার উচিত আগামীর সুন্দর প্রজন্ম ও সুস্থ্য পৃথিবীর জন্য এই নদীগুলোকে বাঁচানোর জোরালো পদক্ষেপ নেওয়া।

নওগাঁর সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন একুশে পরিষদের সভাপতি এ্যাড. ডিএম আব্দুল বারী বলেন, নদ আর নদীর দেশ আমাদের এই বাংলাদেশ। কিন্তু শিল্প কারখানা ও জনসংখ্যার বিস্ফোরনের কারণে নদীগুলো হারিয়ে যেতে বসেছে আবার অনেক নদী মানচিত্র থেকে ইতিমধ্যই বিলীন হয়ে গেছে। তেমনই একটি নদী আমাদের এই ছোট যমুনা নদী । সুন্দর বাংলাদেশের জন্য এই নদীগুলোকে পুনরায় জীবিত করা আমাদের জন্য ফরয হয়ে গেছে। কারন এই নদীগুলো যদি এক সময় হারিয়ে যায় প্রাকৃতিক ভাবে বাংলাদেশও তখন হািরয়ে যাবে। বন্যার কবলে পড়বে দেশের অধিকাংশ নিন্মাঅঞ্চলগুলো। আমাদের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য এই নদীগুলোকে বাঁচাতে হবে। কখনও কখনও এই নদীকে সার্বিকভাবে রক্ষার জন্য বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো ভুমিকা রেখেছেন। তাদেরও দাবী দেশের অন্যান্য নদীর মতো নওগাঁর ঐতিহ্য ছোট যমুনা নদীটিকে দূষণ আর দখলের হাত থেকে রক্ষা করা হোক।

নওগাঁ জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান বলেন, ছোট যমুনা নদীসহ নওগাঁর সবগুলো নদীরক্ষার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ওয়াক ফর হেলদি লাইফ এ্যান্ড ক্লিন এনভায়রনমেন্ট নামের একটি উদ্যোগ হাতে নেয়া হয়েছে। এর আগে আমরা তুলশীগঙ্গা নদীকে কচুরীপানা মুক্ত করে পানির স্বাভাবিক প্রবাহকে ফিরিয়ে এনেছি। পর্যায়ক্রমিক ভাবে আমাদের এই ধারা অব্যাহত থাকবে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৭৬ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই