তারিখ : ২১ আগস্ট ২০১৯, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

মান্দায় শতাধিক বিঘা জমিতে ধানের বদলে মরা শীষ

মান্দায় শতাধিক বিঘা জমিতে ধানের বদলে মরা শীষ,দিশেহারা কৃষক
[ভালুকা ডট কম : ২৩ এপ্রিল]
নওগাঁর মান্দা উপজেলায় বিএডিসি’র ব্রি-ধান ৬৩ জাতের ধান চাষ করে কৃষকরা সর্বশান্ত হয়েছেন। মাঠে মাঠে এই জাতের ধান দেখে পাকা ধাানের ক্ষেত মনে হলেও প্রকৃতপক্ষে ধানের ভিতরে কোন চাউল নেই। শীষে শীষে কেবলই চিটা। এক মুঠো ধান ঘরে তুলতে না পারার আশঙ্কায় দিশেহারা কৃষকরা।

নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার মৈনম ও কশব ইউনিয়নসহ আশের পাশের বিস্তীর্ন এলাকার কৃষকরা চলতি বোরো মওসুমে বিএডিসি থেকে বীজ সংগ্রহ করে তাদের জমিতে ব্রি-ধান ৬৩ জাতের ধান রোপন করেন। ধানের গাছ বেশ ভালোই হয়েছিল। দেথে মনে হয়েছিল ফলনও ভালো হবে। কিন্তু যখন শীষ বের হতে থাকে তখন কৃষকদের চক্ষু ছানাবড়া। ধানের মধ্যে কোন দুধ নেই। পরবর্তীতে শুধুই চিটা। কোন ধানের মধ্যে চাল নেই। প্রতিটি ধানের গাছে শীষে কেবল চিটা আর চিটা। একচি ধানের মধ্যে কোন চালে নেই। হাজার হাজার টাকা খরচ করে ধান উৎপাদন করে কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। খরচের টাকা কোথা থেকে তুলবেন আর  ছেলে মেয়ে নিয়ে সারা বছর খাবেন কি এই দুশ্চিন্তায় ঘুম নেই তাদের চোখে। তাই মাঠে মাঠে কৃষকের আহাজারি কেঁদে মরছে।

মান্দা মৈনম গ্রামের কৃষক আব্দুর রহিম বলেন, ধানের শীষে চিটা দেখে তারা বার বার কৃষি বিভাগের নিকট যোগাযোগ করে পরামর্শ চান। কৃষি বিভাগ বিভিন্ন কীটনাশক ব্যবহারের পরামর্শ দেন কিন্তু কোন পরামর্শই কাজে আসে না বলে জানান তিনি। এখন আমরা চোখে আঁধার দেখছি। কি করে সংসার চালাবো। বাকি দিনগুলো কিভাবে কাটাবো। বিএডিসি কেন আমাদের এই সর্বনাশ করলো?

কশব গ্রামের কৃষক দুলাল বলেন এই এলাকায় যারা বিএডিসি থেকে ব্রি-ধান ৬৩ জাতের ধান চাষ করেছেন তাদের সকলেরই একই অবস্থা। তারা সকলেই বিএডিসি নওগাঁ অফিস থেকেই বীজ সংগ্রহ করেছিলেন। তাঁরাই কেবল ফসল হারিয়ে বর্তমানে সর্বশান্ত হয়েছেন। ধানই আমাদের একমাত্র সম্বল। এখন আমরা কি ভাবে সংসার চালাবো। সন্তানদের পড়ালেখার খরচ কিভাবে দিবো?

নওগাঁ বিএডিসির উপ-সহাকারী পরিচালক আতিকুর রহমান বলেন এই প্রতিষ্ঠান কেবল বীজের বিক্রয় কেন্দ্র। বিভিন্ন উৎস থেকে বীজ সংগ্রহ করে তা সঠিকভাবে রক্ষাবেক্ষন এবং যথাযথ মান নিয়ন্ত্রনের পরই কেবল কৃষকপর্যায়ে সরবরাহ করা হয়। এ ক্ষেত্রে আসলে কি হয়েছে তা তদন্ত সাপেক্ষে জানা সম্ভব।

মান্দার মৈনম ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা উৎসব কুমার হাজরা বলেন কৃষকদের নিকট থেকে জানতে পেরে জমিতে সরেজমিন পরিদর্শন করে করনীয় সম্পর্কে পরামর্শ প্রদান করেছি। আবহাওয়ার কারণে মাজরা পোকা এবং ব্লাষ্ট-এর অক্রমনে এমনটা হতে পারে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

নওগাঁ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক মাহবুবার রহমান বলেন মান্দা এলাকায় ধানের এই বিপর্যয়ের কথা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের নিকট থেকে অবগত হয়েছে জেলা কৃষি বিভাগ। তাঁদের মতে বর্তমানের আবহাওয়ায় ধানের এমন অবস্থা হওয়া কথা নয়। গাছ ভালো হয়েছে, এক্ষেত্রে পরাগায়নের বিভ্রাট হতে পারে। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলে তিনি জানান।

এই এলাকার কৃষকরা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। অনেকের ঘরেই একমুঠো ধানও উঠবেনা। এই ক্ষতি কাটিয়ে কৃষকরা কিভাবে আবার ঘুরে দাঁড়াবেন সে ব্যাপারে দৃষ্টি দেয়ার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি একান্ত অপরিহার্য বলে মনে করছেন সচেতনমহল। #





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

কৃষি/শিল্প বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৮৬ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই